কিভাবে বই পড়ার অভ্যাস গড়বো (৭ টি টিপস)

বই পড়া পৃথিবীর সবচেয়ে ভালো কাজ গুলোর মধ্যে একটি। এইকথা আমরা প্রায় সবাই জানি, হয়তো কখনো কখনো বই কিনে পড়ার চেষ্টাও করি। কিন্তু কয়েক মিনিট পড়ার পর অথবা কয়েক পৃষ্ঠা পড়ার পর বই পড়ার আগ্রহটাই হারিয়ে ফেলি। আজ আমরা এরকমই সাতটি টিপস দেখবো যেগুলো আমাদের ভালো পাঠক হতে অনেক সহায়তা করবে।

. ছোট গল্প দিয়ে শুরু করুন: আপনার যদি বই পড়ার অভ্যাস না থাকে, আর আপনি বড় কোন বই দিয়ে পড়া শুরু করেন তাহলে বেশিরভাগ সময়ই ঘটনার আদ্যোপান্ত বুঝতে না পারার কারণে আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন। এতে আপনার কেন বইটি বুক শেলফ অথবা বিছানায় পড়ে থাকবে। শুরু করবেন করবেন করে আর ধরেও দেখা হবে না। তাই শুরু করতে পারেন একদমই ছোট কোন মজাদার গল্পের বই দিয়ে।

. ঘুম থেকে উঠে পড়া: সকালে ঘুম থেকে উঠার পরে আমরা বেশিরভাগই মোবাইল হাতে নিয়ে টিপাটিপি শুরু করি। নিজের ঘুমানোর সময় সাথে একটা বই নিয়ে ঘুমাবেন। ঘুম থেকে উঠার পর বইটা হাতে নিয়ে পড়া শুরু করবেন। এর থেকে ভালো ভাবে একটা সকালের শুরু কোনভাবেই হতে পারে না। এটি আপনার পড়ার অভ্যাস গড়তেও অনেক সহায়তা করবে।

. বই নিয়ে ঘুমোতে যাওয়া: এখনকার যুগে আমাদের অভ্যাস হয়ে গিয়েছে মোবাইল টিপতে টিপতে ঘুমোতে যাওয়া। এটা আমাদের ঘুমানোর অভ্যাস যেমন ব্যাহত হচ্ছে অন্যান্য কাজগুলো তে মনোযোগ দিতে কষ্ট হচ্ছে। তাই চেষ্টা করবেন ঘুমাতে যাওয়ার আগে একটি বই হাতে নিয়ে কয়েক পৃষ্ঠা পড়তে। এটি আপনাকে একটি ভালো ঘুমের পাশাপাশি বই পড়ার অভ্যাস গড়তে অনেক সহায়তা করবে।

৪.  বই সম্পর্কিত সোশ্যাল মিডিয়া ফলো করুন: যখন আপনি সোশ্যাল মিডিয়াতে ঢুকলেই দেখতে পাবেন মানুষ বই পড়ছে, বই রিভিউ দিচ্ছে বা বই সম্পর্কিত কোনো কথা বলছে এটি আপনাকে সাবকনশাসলি অনেক প্রভাবিত করবে বইয়ের দিকে। আপনি চাইলে বই পড়াশোনা জীবন এর ইউটিউব এবং ইনস্টাগ্রাম ফলো করতে পারেন।

৫. কোন ধরনের বই পড়তে ভালবাসেন: আপনি কোন ধরনের বই পড়তে ভালবাসেন এটার উপরেও কিন্তু অনেকটা নির্ভর করে আপনার বই পড়ার অভ্যাস তাই বই পড়তে হলে নিজে যে ধরনের বই পড়তে ভালবাসেন চেষ্টা করবেন সে ধরনের বই কেনার জন্য। তাহলে আপনি পড়তে গেলে আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন না।

৬. বই কমিউনিটিতে যুক্ত হওয়া: যেখানে বই নিয়ে অনেক আলোচনা করা হয় চেষ্টা করবেন সেরকম জায়গায় নিজেকে যুক্ত করে রাখতে। এতে বিভিন্ন ধরনের বই সম্পর্কিত তথ্য সহজেই আপনি নিজের কাছে পেয়ে যাবেন।

৭. বই লিস্ট বানানো: কোন সময় কি বই পড়বেন ছোট হলেও এরকম একটা লিস্ট বানিয়ে রাখবেন। এটা আপনার একটি ট্র্যাক রেকর্ড থাকবে বই পড়ার। প্রতিটা সময়ই বুঝতে পারবেন আপনার বর্তমান অবস্থান কোথায় রয়েছে।

বই সম্পর্কিত আরও তথ্য পেতে কানেক্টেড থাকতে পারেন আমাদের ইউটিউব এবং ইনস্টাগ্রাম এর সাথে। আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ আর্টিকেলটি পড়ার জন্য।

Leave a Reply